কুয়েট শিক্ষার্থীর উদ্ভাবিত জীবাণুনাশক টানেল ব্যবহৃত হচ্ছে পটুয়াখালীতে

KUET

KUET Connect:   করোনা নামক জাতীয় দুর্যোগে সারা বিশ্ব আজ স্থবির।এই অচল অবস্থা মোকাবেলাই সমাজের যে যা পারছে তাই নিয়ে এগিয়ে আসছে। কেউবা সামান্য সহযোগিতা , কোন কোন প্রতিষ্ঠান পিপিই , মাস্ক নিয়ে এগিয়ে আসছে এই যুদ্ধের প্রধান সৈনিক ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী , পুলিশবাহিনীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে ।

আমাদের এই যোদ্ধাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র সাদিক আহমেদ একটি জীবাণুনাশক টানেলের ডিজাইন করেছেন । তার উদ্ভাবিত এই টানেলটির নাম রাখা হয় –

Automated Disinfected Chamber.

তার তৈরিকৃত ডিভাইসটি সম্পূর্ণ অটোমেটেড ,ডিভাইসটির টানেলের মধ্যে প্রবেশ করার সাথে এর মধ্যে থাকা দুইটি সেন্সর মানুষের অবস্থান খুব অল্প সময়ের মধ্যে ডিটেক্ট করে ফেলে। তারপর টানেলের মধ্যে থাকা ৪ টি নজেলের মাধ্যমে, বিভিন্ন দিক থেকে; ব্যাক্তির দেহে জীবাণুনাশক স্প্রে করা হয়।

এই ডিভাইসটির একটি অনন্য ফিচার হল অন্য ডিভাইসগুলোর মত এটার কোন টাইম লিমিটেশন নেই। অর্থাৎ, যতক্ষণ পর্যন্ত না আপনি ডিভাইসের টানেল থেকে বের হচ্ছেন , ঠিক ততক্ষণ পর্যন্ত এটি স্প্রে চালিয়ে যাবে ।

গত মাসের ৩০ তারিখ ডিভাইসটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করা হয়। ডিভাইসটির ব্যবহার উপযোগিতা সর্বনিম্ন ৩ বছর এবং এর নির্মাণ খরচ ধরা হয়েছে ২৬,০০০ টাকা থেকে ৩০,০০০ টাকার মধ্যে। ২য় পরীক্ষামুলক ব্যবহার করা হয় চলতি মাসের ৪ তারিখ ঢাকার গেণ্ডারিয়াতে।

সব বাঁধা বিপত্তি পার করে ডিভাইসটি মে মাসের ১১ তারিখ গন উৎপাদনের মুখ দেখে । সেদিন পটুয়াখালী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এর সহায়তায় জেলার ৫ টি স্পটে টানেলগুলো স্থাপন করা হয়। স্থানগুলো হল-

১। পটুয়াখালী নিউ মার্কেট

২। পটুয়াখালী ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল

৩। পুরান বাজার

৪। পটুয়াখালী সরকারি কলেজ

৫। গোল চত্বর, পটুয়াখালী

দোয়া রইল সাদিক আহমেদের এই প্রকল্পের আরও অগ্রগতি হোক, দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়ুক তার কাজের সাফল্য ধারা। পৃথিবী মুক্ত হোক করোনা নামক ভয়াল থাবা থেকে।

ছবিগুলো সাদিক আহমেদ ভাইয়ের টাইমলাইন থেকে সংগৃহীত।

ED/Campus Connect/Nazmul Hasan Anan

আপনার ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আমাদের গ্রুপে       

Invest in Social

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *