হল বন্ধ রেখে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন: ছাত্র ফ্রন্ট

ঢাবি

করোনা মহামারীর কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) অনলাইনে ক্লাস কার্যক্রম চললেও যথা সময়ে পরীক্ষা নিতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল বন্ধ রেখে অনার্স ফাইনাল ও মাস্টার্সের পরীক্ষা সশরীরে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। এমন সিদ্ধান্তকে ‘অগণতান্ত্রিক ও দায়িত্বজ্ঞানহীন’ আখ্যা দিয়ে বিরোধিতা করেছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

শনিবার (১২ ডিসেম্বর) দুপুরে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের বার্তা প্রেরক সাদিকুল ইসলামের স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ওই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানানো হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সালমান সিদ্দিকী ও সাধারণ সম্পাদক প্রগতি বর্মণ তমা এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেন, ‘এমন সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণরূপে অগণতান্ত্রিক ও দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দেয়।

কারণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে তা সমাধানের কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। সশরীরে কম বিরতিতে এমনকী একইদিনে দুটি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, গত ১০ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের এক সভায় অনার্স ফাইনাল ও মাস্টার্সের পরীক্ষা সশরীরে নেওয়া ও অনলাইনে ইনকোর্স, মিডটার্ম, টিউটোরিয়াল পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

এই পরীক্ষা শুরু হবে আগামী ২৬ ডিসেম্বর থেকে। শিক্ষার্থীদের থাকার কোনও ব্যবস্থা না করে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ায় সমালোচনার মুখে পড়েছে প্রশাসন।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়া হলে প্রান্তিক ও সুবিধাহীন অঞ্চলে বসবাসকারী শিক্ষার্থীরা কিভাবে অংশগ্রহণ করবে তা নিয়েই কিছু বলা হয়নি।

বোঝাই যাচ্ছে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের কোনও মতামত নেওয়া হয়নি। শিক্ষার্থীদের সমস্যা শোনা হয়নি। এই মহামারীর সময়ে শিক্ষার্থীদের প্রয়োজন প্রশাসন থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা। তাই অবিলম্বে অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানাই।

একইসঙ্গে অনার্স ফাইনাল ও মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে হল খুলে দিয়ে আবাসনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করে পরীক্ষার দাবি জানাচ্ছি। কারণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে আবাসনের ব্যবস্থা শিক্ষার্থীদের পক্ষে অসম্ভব।’

নেতারা শিক্ষার্থীদের মতামত গ্রহণ ও তাদের সমস্যা যাচাই করে এবং বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম চালু এবং হল খুলে দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি সাপেক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের রুপরেখা হাজির করার আহ্বান জানান।

আরো পড়ুনঃ ঢাবির হল খুলে পরীক্ষার নেওয়ার আহ্বান ছাত্রলীগের