ঢাবির বিভিন্ন বর্ষে ভর্তি ও ফরম ফিল-আপ হবে অনলাইনে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ঢাবি du dhaka university

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক (সম্মান) ও মাস্টার্স শ্রেণির বিভিন্ন বর্ষ ও সেমিস্টারে ভর্তি এবং পরীক্ষার ফরম ফিল-আপ অনলাইনের মাধ্যমে সম্পন্ন করা যাবে। আগামী ২১ জুন থেকে অনলাইনে এ কার্যক্রম শুরু হবে।

বৃহস্পতিবার ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সভায় সভাপতিত্ব করেন। গতকাল শুক্রবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।

করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে এবার ভর্তির বিলম্ব ফি মওকুফ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা https://student.eis.du.ac.bd ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ভর্তি ও পরীক্ষার ফরম ফিল-আপ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারবেন।

শিক্ষার্থীরা ভর্তি ও পরীক্ষার ফি ব্যতীত হল এবং বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের যাবতীয় পাওনাদি পরীক্ষার পর পরিশোধ করতে পারবেন।

সভায় উপাচার্য আখতারুজ্জামান অনলাইনে ভর্তি ও পরীক্ষার ফরম ফিল-আপ সংক্রান্ত কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘এর মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিজিটাল প্রযুক্তিতে আরেক ধাপ এগিয়ে গেল। ডিজিটালাইজেশনের অগ্রযাত্রায় এটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন মাইলফলক।’

সভায় উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, সংশ্লিষ্ট শিক্ষক ও কর্মকর্তারা।

সহ-উপাচার্য এ এস এম মাকসুদ কামাল প্রথম আলোকে বলেন, নতুন সিদ্ধান্তটির ফলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত ওয়েব লিংকে প্রবেশ করে নিজ নিজ বর্ষে ভর্তি ও পরীক্ষার ফি জমা দিতে পারবেন। বিভাগ–ইনস্টিটিউট, হলসহ অন্যান্য যাবতীয় পাওনা তাঁরা ক্যাম্পাস খোলার পর বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে দিতে পারবেন। এসব ফি দেরিতে দিলে যে বিলম্ব ফি বা জরিমানা দিতে হয়, তা মওকুফ করা হয়েছে।

করোনা পরিস্থিতির কারণে গত বছরের মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ আছে। এর মধ্যে অনলাইনে ক্লাস ও মিডটার্ম পরীক্ষা হলেও বিভিন্ন বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষাগুলো আটকে আছে।

আগামী জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ ও ইনস্টিটিউটে চূড়ান্ত পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। বিভাগ-ইনস্টিটিউটগুলোর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, অনলাইন ও সশরীর—বিভাগভেদে দুই পদ্ধতিতেই পরীক্ষার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এই পরীক্ষা ও নতুন বর্ষে ভর্তির প্রক্রিয়াকে সামনে রেখে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে গ্রামের বাড়িতে থাকা শিক্ষার্থীদের সশরীর ঢাকায় এসে ভর্তি ও পরীক্ষার ফি জমা দিতে হতো। এখন এসব ফি অনলাইনে দেওয়া এবং হল, বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের পাওনা দেরিতে দেওয়ার সুযোগ উন্মুক্ত করার ফলে এ ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি কিছুটা কমবে।

Invest in Social

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *