বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে SSC ও HSC ফলাফলের কোনো ভূমিকা থাকছেনা

প্রতিবারই দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ভর্তি পরীক্ষার মধ্যমে মেধাবীদের বেছে নেয়। পরীক্ষার্থীদের সংখ্যা যাতে বেশি না হয় সেজন্য শুরুতেই একটি বিশেষ পদ্ধতির মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহনের জন্য যোগ্য শিক্ষার্থীদের সংখ্যা সীমিত করা হয়।

আর সেই বিশেষ পদ্ধতিটি হলো প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার নম্বর বা গ্রেড।

কিন্তু এবার যেহেতু সরকার চলমান মহামারীর কারণে এই বছর এইচএসসি এবং এর সমমানের পরীক্ষা বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং পরিবর্তে শিক্ষার্থীদের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) এবং এসএসসি পরীক্ষার পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে ফলাফল প্রকাশ করেছে,  তাই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও তাদের ভর্তির বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছে এসএসসি এবং এইচএসসি নম্বর বিবেচনা না করে পরীক্ষা।

সূত্র মতে, বেশিরভাগ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির জন্য সম্মিলিত পরীক্ষায় অংশ নেবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) পৃথকভাবে তাদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত করবে।

“আমরা এই বছরের ভর্তি পরীক্ষায় এসএসসি এবং এইচএসসি নম্বর গণনা করব না। এটি আগের দুটি প্রক্রিয়াকে আমলে নেয়ার সেরা উপায় যা শেষ দুটি পাবলিক পরীক্ষায় (জেএসসি ও এসএসসি) করা হয়েছে।”

“আমি উপাচার্যদের সাথে বৈঠকেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করব,” অধ্যাপক মিজান জানিয়েছেন।

অধ্যাপক মিজানের সাথে একমত হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ডঃ দিল আফরোজা বেগম বলেন, শিক্ষার্থীদের সর্বোত্তম স্বার্থে ভর্তি পরীক্ষার জন্য এসএসসি এবং এইচএসসি নম্বর বিবেচনা থেকে বাদ দেওয়ার বিকল্প নেই।

“আমরা ১৫ ই অক্টোবর উপাচার্যদের একটি বৈঠক ডেকেছি। আমরা সেখানে একটি বিশদ আলোচনা করব। আমাদের অবস্থান দুটি পাবলিক পরীক্ষার (জেএসসি ও এসএসসি) নম্বর মওকুফ করা এবং লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে মেধাবী শিক্ষার্থীদের বেছে নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা,” তিনি বলেন।

এই বছর ১৩ লাখ এইচএসসি পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হবে – প্রথমবারের মতো এইচএসসিতে কোনও পরীক্ষা ছাড়াই দেশটি প্রথমবারের মতো ১০০% পাস করবে। এই পদক্ষেপটি সমস্ত ভর্তিচ্ছুকে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় যেতে সক্ষম করবে।

তথ্য অনুসারে, এইচএসসি পরীক্ষায় পাসের হার পূর্ববর্তী পাঁচ বছরের তুলনায় গড়ে ৭০ ভাগ। প্রায় ১২.১৭ লক্ষ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে এবং ৮.৫ লক্ষ শিক্ষার্থী সাফল্য অর্জন করেছে, যার ফলে প্রতি বছর ৩.৬০ লক্ষ শিক্ষার্থীর ব্যর্থ হওয়াকে নির্দেশ করে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় এসএসসিতে ৩০ নম্বর এবং এইচএসসি ফলাফলে ৫০ নম্বর গণনা করেছে। তিনি বলেন, “বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমরা অবশ্যই নাম্বার মওকুফ করার সিদ্ধান্ত নেব।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও প্রাক্তন ইউজিসি অধ্যাপক এ কে আজাদ চৌধুরী বলেছেন, আসন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার জন্য এসএসসি এবং এইচএসসি নম্বর গণনা করা বুদ্ধিমানের কাজ হবে না।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং অন্যান্য ভিসিরা আমাকে ফোন করে পরামর্শ চেয়েছিলেন। তারা সবাই এসএসসি এবং এইচএসসি নম্বর উপেক্ষা করার কথা ভাবছেন।”

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন এই প্রতিবেদকের সাথে এই বিষয়ে তার মতামত জানান। তাঁর অভিমত ছিল যে চলমান মহামারী সবকিছু বদলে গেছে। সেই হিসাবে, ভর্তি ব্যবস্থাটি ভিন্ন আঙ্গিকে হওয়া দরকার।

সূত্র জানায়, চারটি ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষায় যাওয়ার অনুমতি দেওয়ার শর্ত হিসাবে কেবলমাত্র পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত এবং ইংরেজিতে যোগ্যতা অর্জনকে দেখা হবে। চারটি হলেন, বুয়েট, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

বুয়েট টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রাক্তন সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ একেএম মাসুদ বলেছিলেন, “আমরা কেবল এইচএসসিতে প্রাপ্ত পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত এবং ইংরাজীর নম্বর গণনা করি। যদি ভর্তি প্রার্থীদের যোগ্যতা অর্জন হয়, আমরা তাদের পরীক্ষা দেওয়ার জন্য স্বাগত জানাই।”

ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন করা হবে চার দফায়। প্রকৌশল, কৃষি ও সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের ভর্তি পরীক্ষা তিনটি পর্যায়ে এবং বুয়েট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় পৃথক পৃথকভাবে পরীক্ষা গ্রহণ করবে।

 

Invest in Social

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *